Posts

একটু ইসলাম প্রীতি

Image
তপু আর অপু দুই ভাই শান্তু চুপচাপ। যাকে বলে মিনমিনে শয়তান আর কি রাতের আধারে লোকের বাড়ির ঢিল মারা ফল ফলাদি চুরি করা সহ ইত্যাদি কজে তারা পুটু এসব নিয়ে তাদের বাপও ব্যাপক চিন্তাই আছে। কি ভাবে তাদের ভালো পথে আনা যায় কি ভাবে তাদের শান্ত রাখা যায় তাই নিয়ে তাদের বাপ আলোচনা করতে গেলো মসজিদের হুজুরের কাছে। হুজুরে প্রথম পরামর্শ ছিল আপনি নিজে আগে জামাত ইসলামে যোগ দেন নামাজ কালাম পড়েন দেখবেন আপনার ছেলে গুলাও ভালো পথের দিকে এগোবে। হুজুরের কথা মতো কাজ অপু তপুর বাপ নামাজ কালামি হয়ে গেলো টাকা পয়সা বেসি থাকার কারনে পরের বছর হজ ও করে আসলো। বাপের এই কাজকর্ম দেখে ছেলেদুটার চিন্তার ব্যাপক পরিবর্ত আসলো তারা মসজিদে যেতে শুরু করলো নিয়মিত নামাজ পড়া ইসলামি সমাবেসে যোগ দেওয়া এবং শিবিরের সদস্য হতে সময় লাগলোনা না তাদের। হুজুরের সাথে সংখ্যাতা হাওয়া হুজুরের বয়ান শুনতে তারা মসজিদ বেসি সময় দিতে লাগলো। প্রথমে হুজুর তাদের বলতো মুসলিমদের জন্য ইহকাল কোন জিবন নয় এটা একটা পরিক্ষা ভালো পথে চলে মানুষের বিপদে আপদে সাহায্য করতে হবে। মানুষকে দিনের পথে ডাকতে হবে। হুজুর তাদের আরো জানালো যতদিন না পৃথীবিতে ইসলাম কায়েম হবে ততদিন ইসলা…

মূর্তি ভাঙ্গার সুন্নত সমূহ

Image
নবি মুহাম্মদের জিবনের প্রতিটি কাজ ছিল তার উম্মত এবং সাহাবীদের জন্য সুন্নত। ইসলামি শরিয়া আইনের প্রতিষ্ঠিতা মুহাম্মদের প্রতিটা নির্দেশ মানা মুসলিমদের প্রধান কাজ কয়েক দিন আগে সুপ্তষ পাঠক বলেছিলেন মূর্তি ভাঙ্গার খবর বা ছবি না দেখলের উনি বুঝতেই পারেনা যে শরতকাল চলে এসেছে। আসলে কি মুসলিমরা শরতকাল আনার জন্য মূর্তি ভাঙ্গে না কি সেটা তাদের ইমানী দাত্বিয় চলুন দেখে নেওয়া যাক। মূর্তিপূজকদের মূর্তি ভেঙ্গে ফেলা রাসূল ও সাহাবীগণের সুন্নাহ।

আব্দুল্লাহ ইবনু মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, মুহাম্মদ যখন (মক্কা বিজয়ের দিন) মক্কায় প্রবেশ করেন, তখন কাবা ঘরের চারপাশে তিনশত ষাটটি মূর্তি ছিল। মুহাম্মদ নিজের হাতের লাঠি দিয়ে মূর্তিগুলোকে আঘাত করতে থাকেন আর বলতে থাকেনঃ সত্য এসেছে এবং মিথ্যা বিলুপ্ত হয়েছে। নিশ্চয়ই মিথ্যা বিলুপ্ত হওয়ারই ছিল। [সহীহুল বুখারী, হাদিস নং ৪৭২০]

ইবনে ইসহাক বলেনঃ মক্কা বিজয়ের পর উযযা মূর্তি ধ্বংস করার জন্যে রাসূলুল্লাহ খালিদ ইবনে ওয়ালিদকে প্রেরণ করেন। নাখলা নামক স্থানে একটি মন্দিরে উযযা মূর্তি স্থাপিত ছিল। কুরাইশ, কিনানা ও মুদার গোত্র এর পূজা করত এবং সেবা যত্ন ও পাহারাদার…

নাস্তিক বিদ্বেষী

Image
আমাদের সমাজে ভালো মন্দ ভালোবাসা হিংসা তৈরি করে রেখেছে ধর্মিও সমাজ। সমাজ যতটা না চলে তার নিজের গতিতে তার চেয়ে বেসি চলে ধর্মের গতিতে। যাই হোক এই ধর্মিও মুখোস পড়া নামধারি কিছু নাস্তিক মুক্তমনা এক ধরনের কুরটনা ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে। এই বিষয়ে আমি মুফতি মাসুদ ভাইকে ইনবক্স করেছিলাম। হুজুর সুন্দর একটা উত্তর দিল যে গু ঘাটলে গন্ধ বাড়ে আমি বুঝে গেলাম। এই মাসুদ ভাই মুক্তমনার জগতে আসাতে মুক্তচিন্তক নাস্তিকরা অনেক অংশে  ভিত্তিমূল শক্ত করতে পেরেছে। আমরা যারা মোডারেট মুসলিম পরিবারের সন্তান হয়ে পড়ে জেনে বুঝে নাস্তিকতাবাদ চর্চা করছি সেক্ষেত্র এই লোকটি আমাদের থেকে অধিক অংশে সফল।

উম্মে হানি রোজ নামে একটা বিচি ওলা পুরুষ সম্প্রতি মাসুদ ভায়ে পিছনে লেগেছে। কিছুদিন ধরে একটা বিষয় আরো খেয়াল করছি পিনাকীরা আসিফ ভাই আর নাদিয়া নামের একটা মেয়ের ভিতর ঝামেলা মানে ইন্চি মাপার হিসাব নিকাষ বাধাই দিছে। এই পিনাকী আর উম্মে হানি বিচি ওলা পুরুষেরা একিই মুসলিম বির্জের জন্ম ছাপো। আসাদ নুর আর আসিফ ভায়ে ভিতর ঝামেলা এই পিনাকী উম্মে হানিরাই প্রগান্ডা করে বাধিয়ে দিয়েছিল। সহজে আনুমান করতে পারবেন আসিফ মহিউদ্দিন একজন জনপ্রিয় লোক লোকটা যে এখন…

সময়ের কাহিনী বা টাইম বৃত্তান্ত –একটি বাজে রম্য

Image
সময়ের কাহিনী বা টাইম বৃত্তান্ত –একটি বাজে রম্য :

মুখবন্ধ:

 আগে এই গল্প লিখেছিলাম , ভাবলাম একই বস্তু আবার দিই,আমার এই লেখার পথের এক গুরু মহর্ষি শিবরাম ও নিজের লেখা পরিবর্তন করে দিতেন তাই মহাজন যে পথে করে গমন ওই পথেই নিজের লেখা নিজেই চৌর্যবৃত্তি করলাম।এই গপ্পের সকল চরিত্র কাল্পনিক,এর সাথে কোনো বাস্তবের কারোর মিল হলে তা কাকতালীয় এবং তার জন্য আম্মো দায়ী না!একই ভাবে এই ভার্চুয়াল জগতের অজয় রায়ুত,অনুজপ্রতিম তৌসিফ শেখ এবং অন্য দু একটা চরিত্র আনলাম,তারা অনেক সহনশীল তাই কিছু মনে করবেন বলে মনে হয় না ।একই সাথে কালকে আরো এক এইখানেই পরিচিত রানা কে ও আনলাম একটু পচানোর জন্য,আগের একটি চরিত্রের নাম পরিবর্তন করে।সুবর্ণযুগের কিছু ব্লগগুরুর লেখা চুরিধারি করে চালাই তাই নিজের কিছুই নেই।এই গপ্প তাদের করকমলে নিবেদন করলাম।

আমাদের হরগোবিন্দ বাবুকে প্রথমটায় চিনতেই পারিনি তাই মহানন্দে বিপ্লবের এবং তার পথের চোদ্দপুরুষ করছিলাম।দলের মধ্যে নরম বাম এক বন্ধু রানা একটু প্রতিবাদ করছিল কিন্তু দলে সমর্থন না থাকায় খুব একটা সুবিধা করতে পারছিল না।এই অবস্থায় তার বামপন্থী চোখ খুঁজে বের করলো আমাদের বঙ্গদেশের বিপ্লবের শাহ এ জা…

ইসলামে প্রচলিত বিয়ে ও বর্বরতা

Image
মনুসংহিতা একখানি চরম বিভেদমূলক গ্রন্থ। মানুষকে ব্রাহ্মণ,ক্ষত্রিয়, বৈশ্য ও শূদ্র- জন্মসূত্রে এই চারটি বর্ণে ভাগ করা, সংখ্যাগুরু শূদ্রসমপ্রদায়কে ভাগ করে হাজার হাজার জাতের সৃষ্টি করা এবং তাদের মধ্যে আবার কাউকে কাউকে অস্পৃশ্য হিসাবে নির্দেশ করাই এই বিভেদের মূল উৎস। মানুষে মানুষে ঐক্যের পরিবর্তে বিভেদ সৃষ্টি করতে এই গ্রন্থ যে কেবল উৎসাহই দেয় তাই নয়, বরং এই বিভেদকে কঠোরভাবে পালন করার নির্দেশও দেয়। ফলে মানুষে মানুষে পরস্পরের প্রতি ভালোবাসা ও ভ্রাতৃত্ববোধ জাগিয়ে তোলার পরিবর্তে মানুষের অন্তরে ঘৃণা ও হিংসার বীজ ছড়িয়ে দেয়। ঠিক এই কারণেই ১৯২৭ সালের ২৫ ডিসেম্বর মাহাদে বাবাসাহেব ড. ভীমরাও আম্বেদকরের নেতৃত্বে মনুস্মৃতি পুড়িয়ে দেওয়া হয়।  এই বহ্নুৎসবের উদ্দেশ্য সম্বন্ধে বলা হয়, “মনুস্মৃতি শ্রদ্ধার উপযোগী নয় এবং একে পবিত্র গ্রন্থ বলা যায় না। এর প্রতি ঘৃণা দেখানোর জন্য এই সম্মেলন সভাশেষে এর এক প্রতিলিপি দাহ করতে মনস্হ করেছেন। কেননা এ ধর্মের বেশে সামাজিক অবিচার জিইয়ে রাখার প্রণালী বলেই তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে চায়।

তবে হিন্দুরা এখন আর ৫ হাজার বছর আগের আইন মানে না। দুনিয়ার কোথাও আর মনুর আইন চলে…

ইথোনি

Image
ইথোনি
আমি সাধারনত খুব সকালে উঠি বলতে গেলে এক প্রকার মুমিন টাইপের মানুষ আমি নইতো ভোরে উঠতাম না। ভোরের পরিবেশ ভালো লাগার কারনে আমার ঘুম থেকে উঠা। মাঝে মাঝে একটু ধ্যানটেন করি আরকি মন শান্ত রাখার জন্য। যাই হোক একদিন খুব সকালে লম্বা সাদা দাঁড়ি ওলা জোব্বা পড়া তিনটা সুন্দরি পুরুষ লোক আচমকা কোথা থেকে আমার ঘরের বানান্দাই এসে হাজির। প্রথমে তাদের বাংলাদেশের কোন লুচ্চা টাইপের হুজুর মুখ বাদে দেখলে সেই হুজুরের ঈমান দন্ড খাড়ায়ে যাবে। মুমিন না হাওয়ার কারনে আমার অবশ্য তেমনটা হয় নি। হুজুর টাইপের লোক দেখলে আমার আবার সিগারেট ধরাতে মন বলে। আমি একটা সিগারেট ধরিয়ে তাদের দেখতে থাকলাম। অবাক করার বিষয় বাইরে গ্রিল লাগানোর পরেও তারা ভিতরে চলে আসল। আমি উঠে ঘরের দিকে যাব কারন আমার চাপাতির ভয় আছে আর তাদের দেখতেও দাঁড়ি ওলা মোল্লা মনে হচ্ছে। কিন্তু আবাক করার বিষয় হলো আমার শরীলে কোন অঙ্গ আর কাজ করছে না আগের থেকে চোখে আর কানে ভালো শুনছি দেখছি এই দুইটা অঙ্গ বাদে বাকি সব আচল। আমি ভয় পেয়ে গেলাম আমার অসড় শরীল এরপরেও কাঁপছে। হুজুর টাইপের তিনটা লোক এসে আমার সামনে বসল আমাকে বল্ল পড় "ইথোনি শুদ্ধ শান্ত এবং সত্য আমি পড়ালাম…

কয়েকটি কবিতা

Image
সেই আনেক দিন হল
আমি কবিতা লিখিনি।
তুমি চলে গেলে
রাত এসে গেলো
জোনাক পোকারা হারিয়ে গেলো
আকাশ মেঘে ঢেকে গেলো
অথচ কবিতা লেখা হয়নি।

তোমার পায়ের ছাপ
তোমার চুলের গন্ধ
শুকানো ফুলে পাপড়িগুলা
হঠাৎ করে পেলে না
আমার ভিষন কষ্ট হয়।

ইচ্ছে থাকলেও যে পারিনা
যারা চলে যায়
তাদের বেঁধে রাখতে।

আসলেই যাদেরকে ভালোবাসা হয়
খুব, খুব, খুব বেসি
তারাই চলে যায়।

কে যেন বলেছিল
ভালোবাসলে চলে যেতে নেই।

ভালোবাসলেই/ Sajib Hossain

আমি কত শত বার আকড়ে ধরেছি,
দুঃখ গুলো কে ।
কত আজানা দুঃখ কে
আশ্রয় দিয়েছি কবিতায় ।

কত ক্ষত বন্দি করেছি
কবিতার লাইনে লাইনে ।
মমি হয়ে যাওয়া
দুঃখ গুলোকে আটকে রেখেছি কবিতার পাতায়।
কিছুটা বাদ পড়ে যাওয়া দুঃখ
মিশিয়ে ফেলেছি কষ্টের কবিতায় ।

হাজার ফোটা চোখের জল
তোমার জন্য রাখা সুখ
ঠাঁই দিয়েছি কবিতায় ।

আমার জন্য কিচ্ছু রাখিনি
জারজ কষ্ট,
আগণিত চোখের জল
রাখতেই পারিনি ।

সব তোমার নামে ঠাঁই দিয়েছি
কষ্টের কবিতায় ।

ভুলে যাওয়া সুখ
পুরোন হাসি
কিছুই মিশাতে পারিনি ।

শুধু কষ্টরাই ঠাঁই করে নিয়েছে ।
তোমার নামে
লেখা সে কবিতায় ।

কবিতা/ Sajib Hossain

মুছে যাক জরা
তোমাদের মন থেকে ।
মুছে যাক শত কষ্টে
পাওয়া দাগ ।
মুছে যাক হাজার…

ইসলাম এবং যৌনাতা

Image
সমাজের সব প্রচলিত ধারনা থেকে আপনি বের হতে পারবেন না। কারন সভ্যতার তৈরি হয়েছে সমাজ থেকে সমাজ আমাদের শিক্ষা দেয় কিভাবে কার সাথে কেমন ব্যাবহার করতে হবে। কাকে সম্মান করতে হবে বা কাদের সাথে উঠাচলা করতে হবে। মানুষ যখন দলবধ্য হয়ে বসবাস শুরু করলো নিজেদের তাগিদে। মানবসভ্যতা যখন দলবদ্ধ হয়ে বসবাস শুরু করলো আদিম যুগে তখন অনেক কাজ সহজ হয়ে গেলো। কয়েকটা পরিবার মিলে যখন একটা সমাজ প্রতিষ্ঠা করলো। তখন আপনা আপনি ভাবে একটা সমাজে তৈরি হলো নিয়ম। তাছাড়া বিবর্তনের মাধ্যামে যখন মানুষ তার প্রকৃতি রুপ নিলো তখন সেই মানুষ সন্তান জন্ম দিলো তখন আপনা আপনি ভাবে নিজের সন্তানের প্রতি একটা ভালোবাসা টান তৈরি হলো মানুষের ভিতরে  যদিও তখন তার পুরোপুরিভাবে সভ্য হতে পারেনি তবুও তারা একট বাঁধনে সিদ্ধ হলো। একই ভাবে মানুষ সহ সকল জীব পশু পাখির ভিতরেও এই অবস্থান টা বিদ্যামান হলো।

অনেক ধার্মীকগন দাবি করে তাদের ইশ্বর, আল্লাহ এই পৃথীবি তথা মহাবিশ্ব তৈরি করেছে। বিশেষ করে মুসলিমরা দাবি করে থাকে এই পৃথীবি তাদের আল্লাই ৬ দিনে তৈরি করেছে কতটা হাস্যকর। সেই সাথে তারা আরো দাবি করে পৃথীবির প্রথম মানব আদম এবং প্রথম মানবি হাওয়া এবং সেই সাথে দা…

কোন কোন দেশ মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর শত্রু?

Image
কোন কোন দেশ মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর শত্রু? ধ
সৌদি আরব ও চীন। এই দুটি দেশ চায়না তাদের দেশে ইসলামিস্টদের বাড় বাড়ন্ত হোক। কিন্তু এই দুটি দেশ খুব ভাল করে চায় অন্যদেশে ইসলামীত্ব বাড়ুক। ইসলাম ক্যান্সারের ভাইরাসের মতো আক্রান্ত করুক। ইসলাম নিয়ে অন্য দেশগুলো পেরেশানে থাকুক। ইরাক সিরিয়ায় ঘটে যাওয়া ইসলামিক সেস্ট তথা আইএসের সন্ত্রাসবাদ দেখে সৌদি আরব বুঝে ফেলেছে তারা যদি ইসলামের রক্ষনশীল নিয়মগুলো আঁকড়ে ধরে থাকে তাহলে সামনে ভয়াবহ বিপদ ছাড়া আর কিছু নেই। আর দেশ তথা দেশের লক্ষ লক্ষ মানুষকে এর পরিস্থিতির জন্য ভয়াবহ মাসুল দিতে হবে।


 এমন কি দীর্ঘ দিনের লালিত রাজতন্ত্রের আসন থেকে ক্ষমতাচ্যুতও হতে পারে তারা। তাই তারা ইসলামের রক্ষণশীল নিয়মগুলো আস্তে আস্তে ঝেড়ে ফেলে উদার হওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। সৌদি আরব নিজেই ইসলামের বিভৎস পথ থেকে সরে আসতে চায়লেও কিন্তু অন্য উন্নয়নশীল মুসলিম দেশগুলো ইসলাম থেকে সরে এসে উদার হোক তা সৌদি আরব চায় না। তারা এখনো সমানভাবে পৃথিবীর বিভিন্ন রাষ্ট্রে মসজিদ-মাদ্রাসা ভিত্তিক ইসলামের প্রচার ও প্রসারের জন্য বিশাল বহরে অর্থ অনুদান দিয়ে থাকেন। সৌদি আরব এই  অনুদান এখনো বন্ধ করেনি। বাংলাদেশের মাদ্…

আরব্য সংস্কৃতির দাস বাংলাদেশী মিসকিনদের অবস্থান

Image
দেশে ক্যাসিনো থাকা খারাপ না। যাদের অঢেল টাকা পয়সা তাদের জন্য হলেও ক্যাসিনো দরকার। এই যেমন বারে গিয়ে একটু সময় কাটানো, উপরি আয়ের কিছু টাকা দিয়ে ক্যাসিনোতে গিয়ে খরচ করে নিজের জাত চেনার জন্য হলেও ক্যাসিনোর প্রয়োজনীয়তা আছে। সবাই যে নিজের জাত দেখানোর জন্য যায় তা না, কেউ কেউ দুই পেগ মারার অভ্যেস আছে বলেই যায়। তাছাড়া বিদেশী পর্যটকদের জন্যও প্রয়োজন ক্যাসিনো। কিন্তু এদেশের বিশেষ এক সংখ্যাগরিষ্ঠ গোষ্ঠির মদের বার নিয়ে যথার্থ আপত্তি আছে। সেই সংখ্যাগরিষ্ঠরা মনে করে, যেহেতু তাদের সংখ্যা এদেশে ৯০%, তাদের ধর্ম আবার এসব মদ টদ ইহলোকে এলাউ করেনা, সেহেতু তাদের এই এই দেশটাতে ক্যাসিনো ফ্যাসিনো থাকা উচিত নয়। এদেশের অনেক পর্যটন কেন্দ্রে এখনো মদ টদ এগুলো বিক্রি করা হয় খুব লুকিয়ে চুরিয়ে। মদের বার, নাইট ক্লাব, জলসা, ফ্রি সীবীচ, এগুলোকে এক অদৃশ্য শেকলে বেঁধে রেখেছে। মানুষের আনন্দের এই উপাদানগুলো আমাদের দেশে অনেকটা বোবার মতো হয়ে থাকে। তাই কোন মেয়ে বিকিনি পড়ে সমুদ্র সৈকত এনজয় করেনা, আর অনেকে ফ্রি মুডে নাইট ক্লাবও উপভোগ করেনা। কিছুদিন আগে আমি এক দুবাই ফেরত ভদ্রলোকের সাথে কথা বলছিলাম। ভদ্র লোককে প্রশ্ন করলাম, -আচ…

একনায়ক (১ম পর্ব)

Image
গতকাল ওবায়দুল কাদের বলেছিলো আওয়ামীলীগে নাকি শুদ্ধি অভিযান হবে। তার মানে আওয়ামীলীগ অশুদ্ধ হয়ে গেছে। তাহলে প্রশ্ন আসে আপনারা থাকতে এসব কিভাবে হলো? যখন হলো তখন আপনারা কি করছিলেন?

বাঁধা কেনো দেন দেননি? যেহেতু আপনারা বাঁধা দেননি সে গুলোকে এতদিন প্রশ্রয় দিয়েছেন? আচ্ছা ধরে নিলাম আপনারা এসব এতদিন জানতেন না। এসব আপনাদের অগোচরেই হয়েছে। তাহলে এখন যেহেতু জেনে গেছেন সেহেতু ব্যবস্থা নিচ্ছেন না কেনো? শেখ মুজিবের আদর্শকে যারা গলাটিপে হত্যা করছে।

তাদেরকে চোখের সামনে দেখেও তাদের অপকর্মের বিচার শুধু "অভিযান চালাবো" বলে অনির্দিষ্ট ভবিষ্যতের হাতে ছেড়ে দিয়েছেন কেনো? নাকি আপনারা ভয় পাচ্ছেন? ন্যাশনাল জিওগ্রাফি চ্যানেলে "Dictator Rule Book" নামে একটা অনুষ্ঠান হয় আমি প্রায়শই ওটা দেখি। সেখানে দেখানো হয় কিভাবে পৃথিবীতে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দেশের এক নায়কেরা কিভাবে সাধারণ মানুষের উপর নির্যাতন করেছে। শুধুমাত্র ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য তারা নিজেদেরকে প্রকাশ করেছে ঈশ্বর রূপে। আর তাদের চ্যালা চামুন্ডারা সারাদিন তাদের গুণো গান করতো।

 সরকারি লোকেদের সাহায্যে ক্ষমতায় টিকে থাকতে গিয়ে সেইসব এক নায়ক…

কে মুসলমান? কারা মুসলমান নামের ভণ্ড?

Image
মুসলমান নামের অন্ধবিশ্বাসী মূর্খ ভণ্ডে দেশ বিদেশ ভরে গেছে, তাই দেশে বিদেশে তাদের দ্বারা এতো দুর্নীতি, ধর্ষণ, সন্ত্রাস অনাচার। অন্ধবিশ্বাসী নামাজী মুসলমান বিসমিল্লাহ্‌ বলে ধর্ষণ করে, ঘুষ খায়, দুর্নীতি করে, আল্লাহু আকবর বলে মানুষ খুন করে। মূর্খতা অজ্ঞতার কারণে তারাই আবার বুক ফুলিয়ে নিজেকে মুসলমান পরিচয় দেয়।

আংশিকভাবে ইসলাম মানা অর্থাৎ শুধু বিশ্বাস করা আল্লাহ বলে একজন আছে, কোরান সেই আল্লাহর নাজিল করা কিতাব, তার উদ্দেশ্যে আত্মসমর্পণ ও সন্তুষ্টিমূলক কিছু কথা বলে নামাজ পড়াই কি শুধুমাত্র ইসলাম?

ইসলাম কি শুধুমাত্র বিশ্বাস করার নাম, নাকি আমল করা, কায়েম করা বা কোরান-সুন্নাহ বাস্তকবায়ন করার নাম ইসলাম? কোরান-সুন্নায় লাথি মেরে তাগুত তথা মানবরচিত আইনের উপর আনুগত্য আনলে কি আর সে কখনো মুসলমান থাকে? কোরান-সুন্নায় লাথি মেরে তাগুত তথা মানবরচিত আইনের উপর আনুগত্য এনে কেউ নামাজ পড়লে রোজা রাখলেই কি সেই নামাজ-রোজা কখনো কোরান অনু্যায়ী কবুল হবার কথা?

সকালে শয়তানের মূর্তির সামনে পূজা করে বিকালে আল্লাহর উদ্দেশ্যে মসজিদে নামাজ পড়লে যেমন সে নামাজ কখনো কোরান অনুযায়ী কবুল হবেনা, তেমনি কোরান-সুন্নায় লাথি মেরে মানবরচ…

সাপ্তাহিক ধর্মীয় ব্যাঙানিক প্রশ্ন ২য় পর্ব

Image
শুরু যেহেতু করেইছি আপনাদের অনুপ্রেরণা পেলে হয়তো এখানে সেগুলো যুক্ত হয়েই থাকবে। 


দাঁড়িপাল্লা ধমাধম

সুদি আরবের প্রধান দুইটি তেলের খনিতে ড্রোন অ্যাটাক। সুদির বাফ আমেরিকা আর কাজিন ইসরায়েলের সন্দেহ--এইটা ইরানের কাজ। এখন ধরেন আমেরিকা-ইসরায়েল যদি ইরানের সাথে যুদ্ধ বাধায়, তাহলে বাংলাদেশের মমিনরা সুদি নাকি ইরান--কারে সাপোর্ট দেবে এবং কেন?

Bonggog bihoggo
মুমিনরা কোরান-সুন্নাহবিরোধী কামকাজ করলে ইসলামের কোনো ক্ষতি হয়না,
কিন্তু ইসলাম খারাপ বললে মুমিনগুলি
গালাগালি, সন্ত্রাস করে কেনো?

ইয়াজিদের হাতে মোহাম্মদের নাতী ইমাম হোসেন নির্মমভাবে খুন হওয়া কি শুধুমাত্র আলীর অনুসারী শিয়াদের জন্য শোক, সুন্নি মুসলমান কেন খুশী?
কোরানের আল্লাহর আয়াত সত্য বলে বিশ্বাস করতে বলা হয়, আল্লাহর আদেশ বাস্তবায়ন করতে গেলে জঙ্গী-সন্ত্রাসী হিসেবে শাস্তি পেতে হয় কেনো?

পিতৃহীন সন্তানের পরিচয় কি মুসলমানদের জন্য খুবই সম্মানজনক?
"মুহাম্মদ তোমাদের কোন ব্যক্তির পিতা নন; তাঁর স্ত্রীগণ তোমাদের মাতা।"
মোহাম্মদের জন্য কোন্ মুজেজা বিশ্বাসযোগ্য হতো, চার লক্ষ কি. মি. দূরের চাঁদ ভাঙ্গা, নাকি পানিকষ্ট দূর করতে মাটি ফাটিয়ে ঝর্ণা …

বিজ্ঞানময় কুরআন

Image
যারা বলে কুরাআন বিজ্ঞানময় তাদের জন্য আজ বিজ্ঞানময় কুরআনের বৈজ্ঞানিক আয়াত গুলো তুলে ধরা হলো। নিজ দ্বাতিয়ে নিজের মাথার ঘিলু দিয়ে বুঝে নিন আল্লা তথা মুহাম্মদের দুস্ত কোন লেবলের বিজ্ঞানী

নি:সন্দেহ, তোমাদের প্রতিপালক আল্লাহ ,যিনি আসমান ও জমীন ছয় দিনে সৃষ্টি করিয়াছেন, অনন্তর সিংহাসনে সমাসীন হইয়াছেন, তিনিই দিনকে রাত্রির দ্বারা আচ্ছাদিত করেন, যাহা উহার পিছনে দৌড়াইয়া চলে এবং তিনিই চন্দ্র, সূর্য, নক্ষত্রসমূহকে তাহার নির্দেশাধীন করিয়াছেন।
(সুরা আল আরাফঃ৫৪)

তোমাদের প্রতিপালক সেই আল্লাহ তিনি আকাশ ও ভূমন্ডল সৃষ্টি করিয়াছেন ছয় দিবসে, তৎপর তিনি অধিষ্ঠিত হন আরশের উপর।
( সুরা ইউনুস:৩)

আল্লাহ পৃথিবী, গাছপালা প্রাণিজগত আগে সৃষ্টি করেছেন, এরপরে সপ্ত আকাশ বা মহাকাশ।
বলুন, তোমরা কি সে সত্তাকে অস্বীকার কর যিনি পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন দু’দিনে এবং তোমরা কি তাঁর সমকক্ষ স্থীর কর? তিনি তো সমগ্র বিশ্বের পালনকর্তা।
তিনি পৃথিবীতে উপরিভাগে অটল পর্বতমালা স্থাপন করেছেন, তাতে কল্যাণ নিহিত রেখেছেন এবং চার দিনের মধ্যে তাতে তার খাদ্যের ব্যবস্থা করেছেন-পূর্ণ হল জিজ্ঞাসুদের জন্যে। অতঃপর তিনি আকাশের দিকে মনোযোগ দিলেন যা…

নাস্তিকের বাইবেল-THE ATHEIST’S Bible

Image
“পৃথিবী জানলে বিষ্মিত হবে যে, মানবজাতির উজ্জ্বল নক্ষত্রগুলোর অধিকাংশই ধর্মের প্রতি অনাস্থা পোষণ করে।”- বলছিলেন জন স্টুয়ার্ট মিল।

এটা সত্যিই বিষ্ময়কর, প্লেটো থেকে শুরু করে আইনস্টাইন, ইবনে সিনা থেকে মহাত্মা গান্ধী, এ পর্যন্ত জন্ম নেয়া দার্শনিক, বিজ্ঞানী ও চিন্তাবিদ দের অধিকাংশই ঈশ্বরের প্রতি বা প্রচলিত ধর্মের প্রতি না-আস্থা পোষণকারী। এবং এটাও বিষ্ময়কর যে তৃতীয় বিশ্ব বা অনুন্নত বিশ্ব, যেখানে মানুষ শিক্ষা-দীক্ষা বা অর্থনৈতিক উন্নয়নের দিক থেকে পিছিয়ে আছে সেখানেই আস্তিকের হার বেশি। বর্তমান হিসেব মতে, পৃথিবীতে ৩৩ভাগ খ্রীস্টান, ১৯ ভাগ মুসলমান, এবং ১৬ ভাগ নাস্তিক, এবং বলাবাহুল্য- এটাও সত্য যে খ্রীস্টানদের মধ্যে অর্ধেকের বেশি নামে মাত্র খ্রিস্টান,আছে নামে মাত্র মুসলিম, হিন্দু এবং অন্যান্য ধর্মের অনুসারী, এই হিসেবে নাস্তিকের হার দাঁড়ায় সবচেয়ে বেশী। এই গ্রন্থটি নাস্তিকদের বাইবেল নামে পরিচিত এবং সমাদ্রিত। এতে সংকলিত একক কোনো ঈশ্বরের বানী নয় বরং শুরুতেই উল্লেখিত মানবজাতির কিছু নক্ষত্রপুঞ্জের স্রষ্টা, সৃষ্টি ও ধর্ম নিয়ে ভাবনা।

হয়তো পৃথিবীতে আমাদের কাজ ঈশ্বরের উপাসনাই নয়, সৃষ্টিও।
Arther…